98 Flavor Street, Boston, 02118

Open daily 10:00 am to 11:30 pm

পড়াশোনা করতে বিদেশে: আগে জানুন যেসব তথ্য জরুরি

Blog

বিদেশে পড়াশোনা করার স্বপ্ন আমাদের অনেকেরই আছে। তবে সবার সেই স্বপ্ন পূরণের সুযোগ হয়ে উঠে না। তাই আপনি যদি বিদেশে পড়াশোনা করার সুযোগ পেয়ে থাকেন তবে আপনার জন্য রইল অভিনন্দন! আপনার সামনে অপেক্ষা করছে এক সুন্দর এবং উজ্জ্বল ভবিষ্যত। বিদেশে পড়তে যাওয়ার জন্য অনেক শিক্ষার্থীর মাঝেই  উত্তেজনা কাজ করে। তবে অনেকের জন্য এই বিদেশ যাত্রা নতুন, অনেকের মনে থাকে এই সংক্রান্ত অনেক প্রশ্ন। এই ব্লগে বিদেশে পড়াশোনা করতে যাওয়ার আগে প্রস্তুতি এবং পরিকল্পনা, যে যে তথ্য আপনার জানা থাকা আবশ্যক তা নিতে আলোচনা করা হলো। 

১. লক্ষ্য স্থির করুন

বিদেশে পড়তে যাওয়ার আগে আপনার লক্ষ্য স্থির করে নিন। আপনি কেন বিদেশে পড়তে যেতে চান? আপনি কোন বিষয় নিয়ে পড়তে চান? এসব প্রশ্নের উত্তরগুলো খোঁজার চেষ্টা করুন। 

আপনার লক্ষ্য যদি পরিষ্কার থাকে তবে বিদেশে পড়াশোনার জন্য পরবর্তী পরিকল্পনা করা আপনার জন্য সহজ হবে। যেমন, আপনি কোন দেশে পড়তে যেতে চান বা কোন কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে  আপনার আবেদন করা উচিৎ। আপনার ভবিষ্যতের কর্মজীবনের কথা মাথায় রেখে অবশ্যই আপনাকে শিক্ষার ক্ষেত্র বাছাই করতে হবে। তাই বিদেশে পড়তে যাওয়ার প্রস্তুতি শুরু করার আগেই আপনার লক্ষ্য স্থির করে নিন। 

২. বিশদ রিসার্চ করুন

বিদেশে পড়ার দিনগুলোকে সফল করতে চাইলে ভালোভাবে রিসার্চ করুন আপনার হাতে থাকা অপশনগুলোর উপর। আপনি যেই প্রতিষ্ঠানে পড়তে যেতে চান জেনে নিন ঐ প্রতিষ্ঠানের সবকিছু। বিদেশে পড়ার ব্যাপারটি একান্তই আপনার ব্যক্তিগত পরিকল্পনার উপর নির্ভর করে। এটি নির্ভর করে আপনার লক্ষ্য, ভবিষ্যত পরিকল্পনা, এবং আপনার পরিবেশ পরিস্থিতির উপর। এসব কিছু বিবেচনায় নিয়ে ভালোভাবে রিসার্চ করে কিছু প্রতিষ্ঠানকে শর্ট লিস্ট করুন।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচনের বিষয়টি আসলে খরচ, প্রতিষ্ঠানের অবস্থান, সুযোগ-সুবিধা, কোর্স, ভবিষ্যতের কাজের সুযোগ এসব কিছুর উপর নির্ভর করে। এসব বিষয়ে সুযোগ-সুবিধার কথা মাথায় রেখে প্রতিষ্ঠান নির্বাচনের ব্যাপারে গুরুত্ব দিন।

এবার, আপনার তালিকায় থাকা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কোর্স, টিউশন ফি, লোকেশন, আবাসন ব্যবস্থা এসব বিষয় এর উপর বিস্তারিতভাবে তথ্য সংগ্রহ করুন। এই ক্ষেত্রে ঐ বিশ্ববিদ্যালয়ে  অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের অভিজ্ঞতা আপনার সিদ্ধান্ত গ্রহনে সহায়ক হতে পারে। 

এসব কিছু ঠিক থাকলে এবার আপনি আপনার পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন করুন। আবেদনের শর্তগুলো ভালোভাবে দেখুন। কোনো স্কলারশিপ থাকলে সেই শর্তগুলো ভালোভাবে দেখুন। আপনি যদি শর্তগুলো পূরণ করতে পারেন তাহলে স্কলারশিপের জন্যও আবেদন করুন। 

৩. এজেন্সির সহায়তায় নাকি নিজেই আবেদন করবেন?

আপনি যেকোনো স্বনামধন্য এজেন্সির সহায়তায় আপনার পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করতে পারেন। এতে আবেদন প্রক্রিয়া আপনার জন্য অনেক সহজ হয়ে যাবে। এজেন্সি আপনাকে প্র‍য়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করে সহায়তা করবে। 

তবে মনে রাখুন আপনার এজেন্সি আপনাকে কেবল সেই সব বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনের জন্য সাহায্য করতে পারবে যাদের সাথে তারা চুক্তিবদ্ধ আছে। তাই এজেন্সির সাহায্য নেওয়ার আগে দেখে নিন আপনার পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনের ব্যাপারে তারা সাহা্য্য করতে পারবে কিনা।

ইদানীং বিদেশে উচ্চ শিক্ষায় আবেদন করার এজেন্সি গুলোর মধ্যে বেশ কিছু প্রতারক দেখা যায়। তাই সুনামধন্য এজেন্সীর সহায়তা গ্রহন করুন যাতে আপনি প্রতারণার স্বীকার না হন। 

এছাড়া আপনি যদি কোনো এজেন্সির সাহায্য না নিতে চান, তবে আপনি নিজেই আবেদন করতে পারবন আপনার পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়ে। অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনকারীকে সাহায্য করার জন্য স্টুডেন্ট আ্যডভাইসার থাকে। তারা জেকোনো পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করে থাকেন।

৪. ল্যাঙ্গুয়েজ টেস্টের জন্য প্রস্তুতি নিন

দেশ এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভেদে আবেদনকারীকে বিভিন্ন ল্যাঙ্গুয়েজ টেস্ট দিতে হয়ে থাকে। যেমন, IELTS, TOEFL, PTE ইত্যাদি। এসব পরীক্ষার স্কোরের উপর অনেক ক্ষেত্রেই ভর্তি আবেদনের কার্যক্রম নির্ভর করে। তাই এই পরীক্ষাগুলোতে ভালো ফলাফল করার জন্য প্রস্তুতি নিন। পরীক্ষাগুলো কীভাবে হয়ে থাকে, পরীক্ষার প্রষন কাঠামো ইত্যাদি ব্যাপারে আগে থেকেই ধারনা নিন। 

৫. পাসপোর্ট এবং ভিসা আবেদন করুন

আপনার যদি পাসপোর্ট না থাকে তবে আপনি পাসপোর্টের জন্য আবেদন করুন। আবার যদি ভ্রমণের ৬ মাসের মধ্যে আপনার পাসপোর্টের মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যায় তবে বিদেশ যাওয়ার আগে  রিনিউ করে নিন। 

বেশিরভাগ দেশে ভিসা আবেদন নির্ভর করে আপনার ভর্তি আবেদন সম্পন্ন হয়ার উপর। কোনো প্রোগ্রামে যদি আপনার ভর্তি আবেদন মঞ্জুর হয় তাহলে আপনার জন্য ভিসা আবেদন প্রক্রিয়া সহজ হবে। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের যাবতীয় টিউশন ফি পরিশোধ করার পরপরই আপনি স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। 

৬. বাজেট পরিকল্পনা করে নিন

বিশ্ববিদ্যালয় আবেদন, ভিসা আবেদন সম্পন্ন হওয়ার পর এবার আপনি একটি বাজেট পরিকল্পনা করতে পারেন। আপনার টিউশন ফি, স্কলারশিপ, আবাসনের খরচ, যাতায়াতের খরচ, জরুরি কোনো প্র‍য়োজনের খরচ ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে বাজেট পরিকল্পনা করে নিন। আপনি কিংবা আপনার পরিবার কীভাবে এই ব্যয় বহন করবেন সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহন করুন। আপনার ব্যাংকের সাথে এই সংক্রান্ত সহ্যোগিতার ব্যাপারে কথা বলে দেখুন।

৭. ইন্স্যুরেন্স করিয়ে নিন

বিদেশে পড়তে যাওয়ার একটা গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো হেলথ ইন্স্যুরেন্স করানো। আপনার যদি কোনো মেডিকেল ইমার্জেন্সি থাকে তবে ইন্স্যুরেন্সে তা উল্লেখ করুন। আপনার প্রয়োজনীয় ঔষধ পত্রের খরচ যেন ইন্স্যুরেন্সে উল্লেখ থাকে সে ব্যাপারে খেয়াল রাখুন। 

হেলথ ইন্স্যুরেন্সের সাথে আপনার ট্রাভেল ইন্স্যুরেন্সও করিয়ে নিতে পারেন। এতে করে আপনি ট্রাভেল সংক্রান্ত যেকোনো অনাকাঙ্ক্ষিত সমস্যা সমাধানে কার্যকর জবে। 

৮. ফ্লাইট বুকিং করুন

কোর্স শুরু হওয়ার অন্তত তিন মাস আগে আপনি ফ্লাইট বুকিং করতে পারেন। এতে করে আপনি আপনার সাধ্যের ভিতরে যেকোনো ফ্লাইট পছন্দ করতে পারবেন। তাছাড়া ফ্লাইটের খরচের ব্যাপারে নিয়মিত খোঁজ রাখুন। ফ্লাইট বুক করার সময় কী পরিমাণ লাগেজ সাথে নিতে পারবেন, ট্রাঞ্জিশনের ব্যাপারে জেনে নিন। 

৯. আবাসন ব্যবস্থা

বিভিন্ন আবাসন ব্যবস্থা থেকে আপনি আপানার পছন্দসই ব্যবস্থাটি বেছে নিতে পারেন। এমন একটি থাকার জায়গা বেছে নিন যা আপনার বাজেটের মধ্যে পড়বে, আপনার বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে। বিদেশি শিক্ষার্থীরা অনেক ক্ষেত্রেই আবাসন সংক্রান্ত প্রতারণার স্বীকার হন। তাই এই ব্যাপারে সচেতন থাকুন।

১০. শেষবারের মতো সব গুছিয়ে নিন

আপনার প্রয়োজনীয় জিনিসগুলোর একটি লিস্ট বানাতে পারেন। ঐ লিস্ট দেখে সব কিভহু গুভহিয়ে নিতে পারেন। শুধুমাত্র নিতান্ত প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো প্যাক করুন আপনার স্যুতকেসে। অতিরিক্ত জিনিস দিয়ে স্যুটকেস বোঝাই করা থেকে বিরত থাকুন। প্রয়োজনীয় সকর কাগজপত্র, ডকুমেন্টস এর সফট এবং হার্ড কপি সংগ্রহ করুন। প্র‍য়োজনীয় মোবাইল নাম্বার, ঠিকানাগুলো টুকে রাখুন। আপনার পাসপোর্ট এবং ভিসার ডকুমেন্টস গুছিয়ে নিন। 

বিদেশে পড়াশোনা করা, কিংবা সেটেল হওয়া সত্যি খুব কষ্টকর কাজ। প্রথম প্রথম আপনি নিত্য নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবেন। তবে এসব কিছুই আপনার নতুন অভিজ্ঞতার অংশ কেবল। পরিকল্পিতভাবে এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে পারলে বিদেশে আপনার শিক্ষাজীবন অ একটা শজ হয়ে যাবে। তাই বিদেশে পড়াশোনা করতে যাওয়ার প্রস্তুতি নেওয়ার আগে উপরের বিষয়গুলো সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিন। পরিকল্পিত এবং গোছালো পদক্ষেপ আপনার বিদেশে উচ্চ শিক্ষাকে করে তুলতে পারে সুখকর। 

Leave a Comment

Item added to cart.
0 items - $0.00